জুয়েল রানা, সখীপুর প্রতিনিধি : 
 
 
 টাঙ্গাইলের সখীপুরে পাঁচ বছরের এক কন্যা শিশুকে চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। ধর্ষণের পর শিশুটির যৌনাঙ্গে লোহার নাট ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। গত বুধবার উপজেলার কাকড়াজান ইউনিয়নের ইন্দারজানি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ধর্ষিতা শিশুটিকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে ধর্ষিতা শিশুটির মা শুক্রবার রাতে বাদী হয়ে সখীপুর থানায় মামলা করেছেন। পুলিশ ওই রাতেই অভিযুক্ত দুলাল হোসেনকে গ্রেফতার করে শনিবার দুপুরে টাঙ্গাইল আদালতে পাঠিয়েছে।

 পুলিশ ও শিশুটির পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত বুধবার দুপুরে শিশুটি প্রতিবেশী দুলাল হোসেনের বাড়িতে খেলতে যায়। এ সময় ওই বাড়িতে কেউ ছিলনা। এমন সুযোগে দুলাল হোসেন শিশুটিকে চকলেট দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ঘরের ভেতরে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে শিশুটির যৌনাঙ্গে লোহার নাট ঢুকিয়ে দেন দুলাল হোসেন। এ সময় শিশুটির চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে দুলাল পালিয়ে যান। শিশুটির যৌনাঙ্গে ব্যথা অনুভব করলে তার মাকে জানায়। এরপর শিশুটিকে প্রথমে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়। শুক্রবার সকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য ওই শিশুটিকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শনিবার সকালে চিকিৎসকেরা শিশুটির যৌনাঙ্গে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে লোহার নাটটি বের করে।

 শিশুটির মা জানান, ‘মেয়েটি ব্যথা অনুভব করলে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার যৌনাঙ্গ থেকে একটি নাট বের করে চিকিৎসকেরা। আমার মেয়ের পাশবিক নির্যাতনকারী দুলাল হোসেনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

সখীপুর থানার ওসি আমির হোসেন বলেন, এ ঘটনায় মামলা নেওয়া হয়েছে। মামলার একমাত্র আসামি অভিযুক্ত দুলাল হোসেনকে গ্রেফতার করে টাঙ্গাইল আদালতে পাঠানো হয়েছে। অপরদিকে শিশুটিকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।


Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: