প্রকাশ্যে আঁখি আলমগীরের ‘তোমার কারণে’

বিনোদন প্রতিবেদক

ভালেবাসা দিবসকে ঘিরে নতুন গান নিয়ে হাজির হয়েছেন আঁখি আলমগীর। গানের শিরোনাম গানচিত্র ‘তোমারি কারণে’। অনুরূপ আইচের কথায় গানটির সুর করেছেন ফাজবির তাজ ও সংগীতায়োজন করেছেন শাহরিয়ার রাফাত।

রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে গানটির প্রকাশ উপলক্ষে রাজধানীর গুলশানে এক জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এসএস মাল্টিমিডিয়া হাউজ। এই প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে এসএস মিউজিক ক্লাব ইউটিউব চ্যানেলে ‘তোমার কারণে’ গানচিত্র প্রকাশ পেয়েছে।

এসময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- সংগীতশিল্পী আঁখি আলমগীর, এসএস মাল্টিমিডিয়া হাউজের উপদেষ্টা বিলিয়ান বিপু, নির্মাতা ওসমান মিরাজ ও মডেল আরিয়ানা জামানসহ অনেকে।

নতুন গানটি প্রসঙ্গে সংগীতশিল্পী আঁখি আলমগীর বলেন, আমাকে গানটি গাইতে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য এসএস মাল্টিমিডিয়াকে ধন্যবাদ। প্রতিষ্ঠানটির বয়স বেশিদিন হয়নি। আমি মনে করি, এভাবে যদি নতুন নতুন প্রতিষ্ঠানগুলো উঠে আসে, তাহলে নতুন নতুন শিল্পীরাও উঠে আসবে। ‘তোমার কারণে’ গানটিতে যখন কণ্ঠ দিয়েছি তখনই অনেক ভালো লেগেছে। তবে সময়ের অভাবে এর গানের ভিডিওতে উপস্থিত হতে পারিনি। তবে আশা করছে গানচিত্রটি সবার মন ছুঁয়ে যাবে।

এসএস মাল্টিমিডিয়া হাউজের উপদেষ্টা বিলিয়ান বিপু বলেন, আমি মনে করি আঁখি আলমগীর হলেন বাংলাদেশের গান কন্যা। তার কণ্ঠে ভিন্ন রকম একটা জাদু আছে। আমার বিশ্বাস নতুন গানটি শ্রোতাদের অনেক ভালো লাগবে।

কক্সবাজারের বিভিন্ন মনোরম লোকেশনে গানটির ভিডিওটি নির্মাণ করেছেন ওসমান মিরাজ। তিনি বলেন, গানটি অনেক সুন্দর। সাগরের তীরে এর ভিডিও শুট করার পর তা আরও বেশি ভালো লাগছে। এতে মডেল হয়েছেন আসিফ ইমরোজ ও আরিয়ানা জামান। তাদের দু’জনের পারফরম্যান্সও দারুণ ছিল। সব মিলিয়ে একটি চমৎকার কাজ হয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/আইএন/ওয়াইএ

© Bangladesh Journal


from BD-JOURNAL https://www.bd-journal.com/entertainment/107976/প্রকাশ্যে-আঁখি-আলমগীরের-তোমার-কারণে

মুজিববর্ষে বদলে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ

সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী অর্থৎ মুজিববর্ষ উপলক্ষে বদলে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ।

জার্নাল ডেস্ক

সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী অর্থৎ মুজিববর্ষ উপলক্ষে বদলে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ। হাতে নিয়েছে বিভিন্ন কর্মকাণ্ড। গত কয়েকে দিনে পুলিশের উদ্ধতন কর্মকর্তাদের বক্তব্যে উঠে এসেছে এমন তথ্য।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে বাংলাদেশ পুলিশ হতে চায় জনগণের পুলিশ, মানবিক পুলিশ। সংস্থাটি মুজিবর্ষের স্লোগান নির্ধারণ করেছেন মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার।

তার ফলশ্রুতিতে ১৩ ফেব্রুয়ারি পুলিশ সদর দফতরের সম্মেলন কক্ষে দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত ‘পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স কোয়ার্টারলি কনফারেন্স সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় মুজিববর্ষে সপ্তাহব্যাপী পুলিশের সব ইউনিটে ‘পুলিশ সেবা সপ্তাহ’ পালিত করবে। যা শুরুহবে আগামী ৮ থেকে ১৪ মার্চ। 

এদিকে জানুয়ারি মাসে এক অনুষ্ঠানে পুলিশের আইজিপি ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেছেন আমরা জনগণের পুলিশ হতে চাই, মানবিক পুলিশ হতে চাই। মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার। এই শ্লোগান ধারণ করে আমরা কাজ করছি।

আইজিপি বলেন, আপনাদের ক্ষুদ্র প্রয়াস ছড়িয়ে দিতে পারলে অনেকে উপকৃত হবে। পৃথিবীটা অনেক বড়। আমাদের নতুন জেনারেশন বর্তমানে সেলফোন, ট্যাবের মধ্যে আটকে রয়েছে। এখান থেকে বের হয়ে বিশ্বকে দেখতে হবে

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ পুলিশের ইমেজ বৃদ্ধির জন্য আমরা কাজ করছি। থানা হবে মানুষের আশ্রয়স্থল। ভুক্তভোগীরা সর্বপ্রথম সাহায্যের জন্য থানায় আসেন।

তিনি জানান, থানার অফিসারদের মানসিকতা, আচার আচরণ ও ব্যবহার সর্বোত্তম হতে হবে। এজন্য দেশের প্রায় ৭ শত থানার ওসিকে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে ডেকে এনে তাদের সাথে সরাসরি কথা বলেছি ও তাদের কথা শুনেছি। আমরা জনগণের পুলিশ হতে চাই, মানবিক পুলিশ হতে চাই। মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার। এই শ্লোগান ধারণ করে আমরা কাজ করছি।

এছাড়াও মুজিবর্ষে দেশের ৭০০ থানায় চারটি করে হেল্প ডেস্ক স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। ২৬ জানুয়ারি সিলেট পুলিশ লাইন্সে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উদ্বোধন শেষে তিনি জানান।

আইজিপি বলেন, পুলিশের জীবনমান উন্নয়নে ব্যাপক উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ব্যারাকের উন্নয়ন করা হচ্ছে। এছাড়া এ বছরই দেশের সবগুলো থানায় নতুন গাড়িও দেয়া হবে

অন্যদিকে ৩১ ডিসেম্বর এক অনুষ্ঠানে পুলিশ সম্পর্কে মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি বদলে যাবে বলে জানিয়েছেন মুন্সিগঞ্জ জেলার নবাগত পুলিশ সুপার (এসপি) আব্দুল মোমেন । এ সময় জেলার বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ, সমস্যা এবং সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা হয়।

এসপি আব্দুল মোমেন বলেন, মাদক পুরোপুরি নির্মূল করতে না পারলেও মাদকের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স নিয়েই আমরা কাজ করব। কোনো স্থানকে মাদকের স্পট হিসেবে পরিচিত হতে দেয়া যাবে না। তাহলে পুলিশের কাজ কী? পুলিশ অবশ্যই এ ব্যাপারে দায়িত্বশীল ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, ২০২০ সাল ‘মুজিববর্ষ’। মুজিববর্ষে মুন্সিগঞ্জে পুলিশের সেবা অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে। মুজিববর্ষে পুলিশ সম্পর্কে মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি বদলে যাবে। মুজিববর্ষ ঘিরেই সারাদেশে পুলিশের কার্যক্রম নিয়ে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/ এমএম

© Bangladesh Journal


from BD-JOURNAL https://www.bd-journal.com/bangladesh/107975/মুজিববর্ষে-বদলে-যাচ্ছে-বাংলাদেশ-পুলিশ

২০২০ সালে হজে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ!

জার্নাল ডেস্ক

২০২০ সালে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৭ হাজার ১৯৮ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজার ব্যক্তি হজ পালন করতে পারবেন। ইতোমধ্যে বেসরকারি কোটায় অতিরিক্ত ৮৯ হাজারেরও বেশি প্রাক-নিবন্ধন করা হয়েছে। তারপরও চলতি বছর হজে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে।

সর্বশেষ তথ্য জানা যায়, বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক নিবন্ধন করেছেন প্রায় ২ লাখ ৯ হাজার ৫৯৭ জন। আর সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজের প্রাক-নিবন্ধন করেছেন মাত্র ৫ হাজার ৯২৭ জন। ব্যক্তি হজপালন করতে পারবেন।

গত বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব (হজ) এস. এম মনিরুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে ২০২০ সালে হজ পালনে ইচ্ছুকদের জন্য চলতি বছর হজে যাওয়ার তথ্য জানা গেছে।

বেসরকারি ব্যবস্থাপনার যেসব হজযাত্রী ২০২০ সালের কোটা পূর্ণ হওয়ায় ২০২১ সালের জন্য প্রাক-নিবন্ধন সম্পন্ন করেছেন, তাদের মধ্যে কেউ আগ্রহী হলে ২০২০ সালে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে পারবেন।

ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হজ বিভাগের দেয়া বিজ্ঞপ্তিটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

বিজ্ঞপ্তিতে ২০২০ সালে হজ করতে ইচ্ছুক আগ্রহী হজযাত্রীদের- পরিচালক, হজ অফিস, আশকোনা, ঢাকা বরাবর আবেদন করার অনুরোধ করা হয়েছে। আবেদেন এই মেইলেও পাঠানো যাবে- transfer@hajj.gov.bd. প্রয়োজনে এ সংক্রান্ত যেকোনো তথ্যের প্রয়োজনে ০৯৬০২৬৬৬৭০৭ নম্বরে যোগাযোগ করারও অনুরোধ করা হয়েছে।

যারা শেষ মুহূর্তে এসে হজপালনের চিন্তা করছেন তারা সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধন কিংবা বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধন করে থাকলে ট্রান্সফার হয়ে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজপালন করতে পারেন।

উল্লেখ্য যে, অনলাইনে প্রাক-নিবন্ধন পদ্ধতি চালুর পর থেকে সৌদি সরকারের দেয়া কোটার অতিরিক্ত হজযাত্রী নিবন্ধিত হওয়ার প্রবণতার কারণে সরকার প্রাক-নিবন্ধন ব্যবস্থা সারা বছরের জন্য চালু রেখেছে।

ফলে ক্রমিক নম্বর অনুযায়ী কোটার অতিরিক্ত প্রাক-নিবন্ধিতরা পরবর্তী বছরের কোটার মধ্যে পড়লেই কেবল পরবর্তী বছর যেতে পারছেন। যদি তারও পরে সিরিয়াল হয় তাহলে তাকে পরের বছর যেতে হচ্ছে।

যেমন চলতি বছর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজারের কোটা পূরণ হওয়ার পর আরও ৮৯ হাজার ৫৯৭ জন প্রাক নিবন্ধিত হয়ে আছেন। এ ছাড়া প্রতিদিনই আগ্রহীরা নিবন্ধন করছেন। এখন নিবন্ধনকারীদের ২০২১ সালের জন্য অপেক্ষা করেতে হবে।

যেহেতু সরকারি কোটায় এখনও প্রায় ১১ হাজার ব্যক্তির হজ করার ব্যবস্থা রয়েছে। সুতরাং চলতি বছর কেউ হজ করতে চাইলে সরকারি ব্যবস্থাপনাকে বেছে নিতে পারেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওয়াইএ

© Bangladesh Journal


from BD-JOURNAL https://www.bd-journal.com/religion/107974/২০২০-সালে-হজে-যাওয়ার-সুবর্ণ-সুযোগ

কে এই রেজাউল করিম?

আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী কে এই রেজাউল করিম?

জার্নাল ডেস্ক

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচন নিয়ে আলোচনা শুরুর পরে থেকেই গুঞ্জন শুরু হয়েছিল, মেয়র পদে এবার চমক আসছে। তাইতো বাঘা বাঘা সব প্রার্থীকে পেছনে ফেলে দলের মনোনয়ন পেয়েছেন নগর আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম চৌধুরী, যিনি নগরের রাজনীতিতে পুরনো মুখ হলেও সব সময় থেকেছেন আলোচনার বাইরে।

গত শনিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) রাতে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভায় তার প্রার্থিতা চূড়ান্ত করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম চৌধুরী ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। ১৯৬৭ সালে কলেজ ছাত্রাবস্থায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সদস্য পদে ফরম পূরণের মাধ্যমে রাজনীতিতে যুক্ত হন। ১৯৬৯-১৯৭০ সালে চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ১৯৭০-১৯৭১ সালে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ছাত্রাবস্থায় তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ১নং সেক্টরের বি এল এফ এর মাধ্যমে গেরিলা যুদ্ধে অংশ নেন। চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ ও কোতোয়ালি থানা এলাকায় সরাসরি যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এ মুক্তিযোদ্ধা।

১৯৭৩-১৯৭৫ সালে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন রেজাউল করিম চৌধুরী। পড়াশোনার জন্যে ভর্তি হয়েছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগে। কিন্তু ৭৫ এর পট পরিবর্তনের কারণে সামরিক দুঃশাসনের বিরুদ্ধে সক্রিয় প্রতিরোধ লড়াইয়ে নেমে ফাইনাল পরীক্ষা দিতে পারেননি তিনি। পরে ১৯৮০ সালে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের কার্যকরী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৭-২০০৬ সালে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক, ২০০৬-২০১৪ সালে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ হিসেবে চট্টগ্রামের রাজনীতিতে পরিচিতি রয়েছে রেজাউল করিম চৌধুরীর। বর্তমানে তিনি নগর আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

চট্টগ্রামের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, মূলত একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবেই রেজাউল করিম চৌধুরীকে দলের প্রার্থী হিসেবে বেছে নিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছিরের কর্মকাণ্ড নিয়ে অস্বস্তি ছিল দলের মধ্যেই। এর বাইরে অন্যান্য প্রার্থীদের নিজস্ব রাজনীতি রয়েছে চট্টগ্রাম মহানগরে, যা নিয়ে দলের অভ্যন্তরে রয়েছে গ্রুপিং। এই একটি জায়গায় ব্যতিক্রম রেজাউল করিম চৌধুরী।

মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম ১৯৫৩ সালে চট্টগ্রামের চান্দগাঁও থানার পূর্ব ষোলশহর ওয়ার্ডের ঐতিহ্যবাহী ও প্রাচীন জমিদার বংশ বহরদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম হারুন-অর-রশীদ চৌধুরী ছিলেন একজন উচ্চ পদস্থ সরকারি কর্মকর্তা ও দাদা ছালেহ আহমদ ছিলেন ইংরেজ শাসিত ভারত এবং পাকিস্তান আমলে চট্টগ্রামের একজন খ্যাতিমান আইনজীবী ও চট্টগ্রামে ব্রিটিশ আমলে প্রতিষ্ঠিত বিলুপ্ত কমরেড ব্যাংকের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। তিনি পাকিস্তান আন্দোলন ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

তার বড় ভাই অধ্যাপক সুলতানুল আলম চৌধুরী ছিলেন একজন রাজনীতিবিদ। তিনি ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। এছাড়া তার পূর্ব পুরুষেরা চট্টগ্রামের বিভিন্ন জায়গায় ২৩টি মসজিদ প্রতিষ্ঠাসহ অসংখ্য জনকল্যাণমূলক কাজ করেছেন। পারিবারিক জীবনে দুই মেয়ে ও এক ছেলে সন্তানের জনক রেজাউল করিম। তার বড় মেয়ে তানজিনা শারমিন নিপুন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করছেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওয়াইএ

© Bangladesh Journal


from BD-JOURNAL https://www.bd-journal.com/bangladesh/chittagong/107973/কে-এই-রেজাউল-করিম

সেই প্রমোদতরীর মার্কিন যাত্রীদের জাপান ত্যাগ

আন্তর্জাতিক

জাপানের প্রমোদতরী ডায়মন্ড প্রিন্সেসের ৪০০ মার্কিন যাত্রী অবশেষে জাপান ত্যাগ করেছেন। সোমবার সকালে দুটি বিশেষ মার্কিন বিমানে করে তাদের টোকিওর হানেদা বিমানবন্দর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে রওনা হয়েছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

গত ৩ ফেব্রুয়ারি থেকে তিন হাজার ৭০০ আরোহী নিয়ে প্রমোদতরীটি ইয়োকোহামা সমুদ্রবন্দরে কোয়ারেন্টাইনে ছিল। হংকং থেকে ওঠা ৮০ বছরের এক চীনা যাত্রীর মাধ্যমে জাহাজটিতে এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে। প্রমোদতরীটিতে ৪০০ জনেরও বেশি মার্কিন নাগরিক ছিলেন। এদের মধ্যে ৪০ জনের দেহে এ ভাইরাস পাওয়া গেছে।

আক্রান্তদের জাপানে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। বাকিরা সোমবার সকালে টোকিওর হানেদা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের পথে রওনা হন।

এদিকে জাপানের ইয়োকোহামা বন্দরে কোয়ারেন্টাইনে রাখা ডায়মন্ড প্রিন্সেসের আরও ৭০ যাত্রীর দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়েছে। এ নিয়ে ওই জাহাজে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫৫তে গিয়ে দাঁড়ালো। তাদের মধ্যে একজন কোয়ারেন্টাইন কর্মকর্তাও রয়েছেন।

ওই জাহাজে প্রায় ৪০০ আমেরিকান নাগরিকসহ ৩ হাজার ৭০০ যাত্রীকে দুই সপ্তাহ ধরে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে যাদের নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে, তাদের চিকিৎসার জন্য জাপানি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এমএ/

© Bangladesh Journal


from BD-JOURNAL https://www.bd-journal.com/international/107972/সেই-প্রমোদতরীর-মার্কিন-যাত্রীদের-জাপান-ত্যাগ

বহুবার ভেঙ্গেও সোনালি শিখরে এই প্রাথমিক স্কুল

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের কাজিপুর উপজেলার ‘নাটুয়ারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়’ প্রাথমিক শিক্ষায় একটি মডেল হিসেবে দাঁড়িয়ে গেছে। ধারাবাহিক ভালো ফলাফল, বিদ্যালয়ের পরিবেশ, সামাজিক কর্মসূচি পালন, বিভিন্ন সরকারি কর্মসূচি নিষ্ঠার সাথে পালন, সাংস্কৃতিক এবং ক্রীড়া উভয় ক্ষেত্রেই উপজেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখাসহ নানা কার্যক্রম পরিচালনা করায় বিদ্যালয়টিকে এক অনন্য উচ্চতায় দাঁড় করিয়েছে।

বিদ্যালয়টির অবস্থান কাজিপুরের যমুনাবিধৌত নাটুয়ারপাড়া চরে। এরই মধ্যে বেশ কয়েকবার ভাঙনের কবলে পড়েছে বিদ্যালয়টি। কিন্তু ঘর ভাঙলেও মন ভাঙেনি এই বিদ্যালয়ে কর্মরত শিক্ষকমণ্ডলী এবং শিক্ষার্থীদের। চরাঞ্চলের বিদ্যালয়গুলোতে যেখানে সঠিক সময়ে পৌঁছে নিয়মিত ক্লাস নেয়াই দুরূহ ব্যাপার, সেখানে এই প্রতিষ্ঠানটি চরবিড়ার ব্যবধান ঘুচিয়ে সাফল্যের সোনালী শিখরে আরোহণের নিরন্তর প্রচেষ্ঠা অব্যাহত রেখেছে।

ভাঙা-গড়ার মধ্যেও বর্তমানে এই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসংখ্যা তিনশ’র উপরে। প্রতি বছরই এই বিদ্যালয়ের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার সাফল্যের সূচক ঊর্ধ্বমুখী।

গত পাঁচ বছরের পিইসি পরীক্ষায় এই বিদ্যালয় থেকে শতভাগ শিক্ষার্থী পাশ করেছে। এই সময়ে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে ১৯৩ জন। এদের মধ্যে জিপিএ ৫ পেয়েছে ১২৯ জন। ট্যালেন্টপুলে ও সাধারণ গ্রেডে বৃত্তিও পেয়েছে অনেকেই। সর্বশেষ ২০১৯ সালের প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় মোট ৪২ জন শিক্ষার্থী অংশ নিয়ে শতভাগ পাসসহ জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩৮ জন।

শিক্ষার্থীদের সফলতার সাথে সাথে এই বিদ্যালয়ের আলাদা স্বীকৃতিও রয়েছে। দুইবার এই বিদ্যালয়টি উপজেলার শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্বাচিত হয়েছে। আর এই বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক মোনারুল ইসলাম উপজেলার শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছেনও দুইবার। সর্বশেষ ২০১৯ সালে বিদ্যালয়টির ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি আব্দুল মান্নান (বি.এস.সি) উপজেলার শ্রেষ্ঠ সভাপতির স্বীকৃতি পেয়েছেন। শিক্ষকমন্ডলী এবং পরিচালনা কমিটির মাধ্যমে এই বিদ্যালয়ে প্রতিবছর চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কোরআন শিক্ষা দেয়া হয়। অনন্য এই উদ্যোগটির পৃষ্ঠপোষকতা করেন সভাপতি নিজে।

পড়ার পাশাপাশি বিদ্যালয়ের কিশোর-কিশোরী ক্লাবে শিক্ষার্থীরা আবৃত্তি, গান ও নাচের চর্চা করে। জাতীয় সঙ্গীত প্রতিযোগিতায় বিদ্যালয়ের প্রতিযোগীরা ৩য় স্থান লাভ করেছিল। একই বছরে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে উপজেলা পর্যায়ের রানার্সআপ হয় এই বিদ্যালয়ের ছেলে ফুটবল দল।

শিক্ষকবৃন্দের সহযোগিতায় ক্ষুদে ডাক্তার, পরিচ্ছন্নতা অভিযান, শিশু দিবসসহ সকল জাতীয় উৎসব ও দিবসসমূহ এই বিদ্যালয়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়। ক্লাসের ক্লান্তি দূর করতে ফুলবাগানের পরিচর্যাসহ প্রতিবছর শিক্ষা সফর ও বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

এ ব্যাপারে কাজিপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার আমজাদ হোসেন বলেন, বিদ্যালয়টি চরে অবস্থিত হলেও এখানকার শিক্ষকদের প্রচেষ্টায় ফলাফল অনেক ভালো।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোনারুল ইসলাম বলেন, সবদিক থেকেই শিক্ষার্থীদের যোগ্য মানুষ করে তুলতে আমরা চেষ্টা করছি। আমদের এখানে শিক্ষক সংকট, খেলার মাঠ না থাকা, শ্রেণিকক্ষের অপর্যাপ্ততা রয়েছে। এসব সমস্যা নিরসনে কর্তৃপক্ষের সদয় দৃষ্টি পড়লে বিদ্যালয়ের সাফল্যের পথ আরও সুগম হবে বলে আশা করি।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওয়াইএ

© Bangladesh Journal


from BD-JOURNAL https://www.bd-journal.com/bangladesh/district-upazila/107971/বহুবার-ভেঙ্গেও-সোনালি-শিখরে-এই-প্রাথমিক-স্কুল