আখেরি মোনাজাত আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক

টঙ্গীর তুরাগ তীরে তাবলিগ জামাত আয়োজিত তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের শেষ দিন আজ।

রোববার দ্বিতীয় পর্বের এই ইজতেমায় মাওলানা সা’দ এর অনুসারি দেশি-বিদেশি কয়েক লাখ মুসল্লি অংশ নিচ্ছেন।

বাদ ফজর ভারতের মাওলানা ইকবাল হাফিজের আম বয়নের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে শেষ দিনের কার্যক্রম। তার বয়ান বাংলায় তরজমা করছেন বাংলাদেশের মাওলানা ওয়াসিফুল ইসলাম। আজ ময়দানে অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাত।

আখেরি মোনাজাতের আগে সমবেত মুসল্লিদের উদ্দেশ্য হবে হেদায়েতি বয়ান। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ভারতের মাওলানা জমশেদ হেদায়েতি বয়ান শুরু করবেন। তার বয়ান বাংলায় তরজমা করবেন বাংলাদেশের আশরাফ আলী। এরপর অনুষ্ঠিত হবে আখেরি মোনাজাত। আখেরি মোনাজাতও পরিচালনা করবেন মাওলানা জমশেদ। ধারণা করা হচ্ছে সকাল ১১টা থেকে সাড়ে ১১টার মধ্যে যে কোন সময় আখেরি মোনাজাত শুরু হবে।

ইজতেমা দ্বিতীয় পর্বে যোগ দেয়া কয়েক লাখ মুসল্লির পাশাপাশি আখেরি মোনাজাত শরিক হতে আরো বিপুল সংখক মুসল্লি ময়দানে আসবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। মুসল্লিদের ইজতেমা ময়দানে আসা এবং আখেরি মোনাজাত শেষে বাড়ি ফেরা নিবিঘ্ন করতে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ ভোর রাত ৪টা থেকে টঙ্গীমুখী মহাসড়ক, সড়ক ও শাখা সড়কে গণপরিবহণ প্রবেশ বন্ধ রেখেছে।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের জয়দেবপুর চান্দনা চৌরাস্তা, ঢাকার মহাখালী, কালীগঞ্জ-টঙ্গী সড়কের মীরের বাজার দিয়ে গণপরিবহন টঙ্গীতে প্রবেশ বন্ধ থাকায় মোনাজাতে অংশ নিতে মুসল্লিসহ ধর্মপ্রাণ সাধারণ মানুষ হেঁটেই ইজতেমাস্থলের দিকে আসছেন। তবে হাঁটার পাশাপাশি বিভিন্ন শাখা সড়কে অনেক মুসল্লিদের রিকশা, ভ্যান, মোটরসাইকেল ইত্যাদি বাহনে চড়ে আসতে দেখা গেছে। আখেরি মোনাজাতে আগ পর্যন্ত মানুষের আসা অব্যাহত  থাকবে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মো. আনোয়ার হোসেন জানিয়েছেন, আখেরি মোনাজাতের পর মহাসড়ক-সড়কের পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত ওই ট্রাফিক ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে। মোনাজাতে যোগ দিতে আসা এবং মোনাজাত শেষে বাড়ি ফেরা বৃদ্ধ মুসল্লিদের যাতায়তের জন্য ইজতেমাস্থল থেকে চৌরাস্তামূখী ৩০টি এবং মহাখালীমূখী ৩০ সাটল বাস চলাচল করবে জানান তিনি।

এর আগে ১৭ জানুয়ারি শুক্রবার বাদ ফজর দিল্লীর মুফতি উসমানের আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। ওই বয়ান বাংলায় তরজমা করেন বাংলাদেশের মুফতি আব্দুল্লাহ মুনসুর। শুক্র ও শনিবার ফজর থেকে এশা পর্যন্ত তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বীগণ মহান আল্লাহ প্রদত্ত বিধান ও রাসুল (সঃ) প্রদর্শিত তরিকা অনুযায়ী জীবন গড়ার আহ্বান জানিয়ে ইমান, আমল, আখলাক ও দ্বীনের পথে মেহনতের উপর বয়ান করেন। সমবেত তাবলিগ জামাতের মুসল্লিরা বয়ান শুনে এবং জিকির আসকার, ইবাদত, বন্দেগী করে ময়দানে গত দুইদিন অতিবাহিত করেন। 

আরো তিন মুসল্লির মৃত্যু : ইজতেমায় যোগ দেয়া আরো তিন মুসল্লির হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করেছে। গতরাতে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ থানার চাঁদপাড়া দূর্গাদাহ গ্রামের মৃত মজিবুর রহমানের ছেলে মো. শাহ আলম (৬৫) ও চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা থানার খাদিমপুর এলাকার মৃত মোয়াজ্জেম হোসেনের ছেলে ফজলুল হক (৬৮) এবং শনিবার নেয়াখালীর হাতিয়া থানার আজিমনগর এলাকার মৃত মফিজুল ইসলামের ছেলে মনির উদ্দিন (৪০) মৃত্যু বরণ করেন।

এ নিয়ে দ্বিতীয়পর্বে মোট ১০ মুসল্লি মারা গেছেন। এদের মধ্যে দুই মুসল্লি সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যান। মৃত অন্যরা হলেন- রংপুরের পীরগঞ্জ থানার উসমানপুর এলাকার মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে হুমায়ুন কবির (৬০), ঝিনাইদহ সদরের কালাহাট গোপালপুর এলাকার লুৎফর রহমানের ছেলে আ ফ ম জহুরুল আলম (৬৫), ঢাকার তুরাগ থানাধীন নলভোগ এরাকার ফজলুর রহমানে ছেলে ইলিয়াস মিয়া (৮৫) এবং গাইবান্ধার সাঘাটা থানার কামালেরপাড়া এলাকার ভিলু হাজীর ছেলে আব্দুর সোবাহান (৬৫), সুনামগঞ্জের গোয়ারাবাজার থানার চাঁনপুর এলাকার মৃত হযরত আলীর ছেলে কাজী আলাউদ্দীন (৬২)। এ ছাড়া ইজতেমাস্থলে আসার পথে টঙ্গীর স্টেশন রোড এলাকায় কাভার্ডভ্যান চাপায় নরসিংদীর বেলাবো থানা এলাকার সুরুজ মিয়া (৬০) ও টঙ্গী জংশনে ট্রেনের ধাক্কায় গাইবান্ধার ফুলছড়ি থানা এলাকার গোলজার (৪০) মারা যান ।

উল্লেখ‌্য, এবারের দুই পর্বের ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমার প্রথমপর্ব শুরু হয় গত ১০ জানুয়ারি। ওই পর্বে মাওলানা যোবায়ের (আলমি শুরার) অনুসারী দেশি-বিদেশি মুসল্লিরা অংশ নেন। ১২ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয় প্রথমপর্ব।

আজ আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে দ্বিতীয় পর্ব তথা এবারের বিশ্ব ইজতেমার পরিসমাপ্তি ঘটবে।

 

গাজীপুর/হাসমত/বুলাকী



from Risingbd Bangla News https://ift.tt/2NECpEN
Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: