আন্তর্জাতিক ডেস্ক :


ভারতের তেলেঙ্গানা রাজ্যে ঘটেছে একটি মর্মান্তিক ঘটনা। প্রেম করে ‘নিচু জাত’র এক ছেলেকে বিয়ে করায় নিজের মেয়েকে হত্যা করেছেন বাবা। মেয়েকে হত্যার পর মরদেহ পুড়িয়ে সেই ছাই নদীতে ফেলে দেন তিনি। গত শনিবার তেলেঙ্গানার কালামাদুগু নামক গ্রামের এ ঘটনায় অভিযুক্ত বাবা-মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে পুলিশের বরাত দিয়ে জানানো হয়েছে, নির্মমভাবে হত্যার শিকার ওই মেয়ের নাম অনুরাধা। মেয়ের বিয়ের সংবাদ শোনার পর ক্ষিপ্ত হয়ে যায় তার পরিবার। পরিবারের কয়েকজন সদস্যের সহায়তায় অনুরাধার বাবা-মা তাকে হত্যা করে মরদেহ পুড়িয়ে ফেলে। এরপর প্রমাণ নিশ্চিহ্ন করতে ছাই নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়।

পুলিশ বলছে, অনুরাধার সঙ্গে লক্ষণ নামের এক ছেলের দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ছিলো। কিন্তু অনুরাধার পরিবার তাদের এই সম্পর্ক মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানায়। অনুরাধার পরিবারের ভাষ্য, লক্ষণ ‘নিচু জাতের’ ছেলে। তার সঙ্গে সম্পর্ক কোনোভাবেই সম্ভব নয়। পরিবারের এমন বিরোধিতার মুখে গত ৩ ডিসেম্বর তারা হায়দ্রাবাদে পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করেন।

এ ঘটনার ২০ দিন পর গত শনিবার দু’জনেই গ্রামে ফিরে এসে লক্ষণের বাড়িতে বসবাস শুরু করেন। খবর পেয়ে সেদিনই লক্ষণকে মারধর করে তার বাড়ি থেকে অনুরাধাকে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে যান তার বাবা ও পরিবারের সদস্যরা। এরপর তাকে হত্যা করা হয়। শুধু হত্যা নয় হত্যার পর মরদেহ পুড়িয়ে ছাই নদীতে ফেলে দেয়া হয়।

Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: