নিউজ ডেক্স : ঢাকার মিরপুর থেকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে অস্ত্রের মুখে গার্মেন্টস ব্যবসায়ী মো. মুসলিমকে অপহরণ করে পরিবারের কাছে ৩০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে আসছে সন্ত্রাসীরা। অপহরণের ১২দিন পর বৃহস্পতিবার বিকেলে পুলিশ রামঞ্জের ভোলাকোট ইউনিয়নের শাকতলা গ্রাম থেকে তাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে হারুন নামের এক যুবককে আটক করা হয়। তিনি স্থানীয় শাকতলা গ্রামের সেকান্দর মিয়ার ছেলে।

অপহরণের ঘটনায় মূল হোতা রামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বেলাল আহমেদের ভাগিনা বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম জুয়েলকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। এ নিয়ে ব্যবসায়ীর স্ত্রী নারগিস আক্তার রামগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন।

পুলিশ ও ভুক্তভোগী পরিবার জানায়, গার্মেন্টস ব্যবসায়ী মুসলিমকে গত ৭ নভেম্বর জাহিদুল ইসলাম জুয়েল ও হারুন ঢাকার মিরপুর থেকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করা হয়। এরপর রামগঞ্জে নিয়ে তাকে আটকে রেখে শারীরিক নির্যাতন করা হয়। কয়েকদিন ধরে অপহরণকারীরা তার স্ত্রীর কাছে মোবাইল ফোনে ৩০ লাখ টাকা মুক্তিপণ করে। তাদের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে ব্যবসায়ীর স্ত্রী স্থানীয় থানা পুলিশকে বিষয়টি অবগত করে। ঘটনার সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে উদ্ধার এবং একজনকে আটক করে।

এ ব্যাপারে রামগঞ্জ থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) সোলায়মান চৌধুরী বলেন, এ ঘটনায় ব্যবসায়ীর স্ত্রী থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। অপহরণকারী জুয়েলকে আটক করতে অভিযান চলছে। এ বিষয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: