ডেক্স নিউজ : পটুয়াখালীর শীর্ষ সন্ত্রাসী একাধিক হত্যা মামলার আসামি তরিকুল ইসলাম তরু (৩৫) র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। সোমবার ভোর ৪টার দিকে শহরের বিসিক শিল্প নগরী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তরুর বাসা শহরের চরপাড়া এলাকায়।

পটুয়াখালী সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম তারিকুল ইসলাম র‌্যাব-৮ এর বরাত দিয়ে জানান, র‌্যাব-৮ এর একটি টহল দল জানতে পারে শহরের বিসিক এলাকার লাউকাঠি নদীর পাড়স্থ খালি মাঠের মধ্যে একদল অস্ত্রধারী সস্ত্রাসী, অপরাধমুলক কর্মকাণ্ডের উদ্দেশ্যে অবৈধ অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ অবস্থান করছেন। র‌্যাব সদস্যরা সেখানে গেলে তরুসহ তার বাহিনীর ৬/৭ জনকে দেখতে পান। তল্লাশি করতে চাইলে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেন তারা। এসময় তরু ও তার সঙ্গীদের ধাওয়া করেন র‌্যাব সদস্যরা। এক পর্যায়ে তরু বাহিনী র‌্যাবের ওপর এলোপাথাড়ি গুলিবর্ষণ শুরু করেন। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাব সদস্যরাও পাল্টা গুলি চালায়। অন্যরা পালিয়ে গেলেও এতে তরুর শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুলি লেগে ঘটনাস্থলেই নিহত হন তিনি।

পরে তার মরদেহের পাশ থেকে ২৪ রাউন্ড গুলি, ৪টি দেশি বিদেশি বিভিন্ন আগ্নেয়াস্ত্র, ৬শ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করা হয়েছে। মরদেহ পটুয়াখালী হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সন্ত্রাসী তরু পটুয়াখালী সদর উপজেলার মাদার বুনিয়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য হত্যা মামলার এজাহার নামীয় আসামি তরু। এছাড়াও শহরে ডাকাতি, খুন, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।

এদিকে, নিহত তরুর স্ত্রী রেখা বেগম জানান, গত ১৭ জুলাই সকালে তার স্বামী মোটরসাইকেল নিয়ে বরিশালের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে রওনা হয়ে যান। ওইদিন দুপুর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। পরে তার এক সহযোগী তরুর ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি তাদের বাসার সামনে রেখে যান। এরপর গত মঙ্গলবার রেখা বেগম পটুয়াখালী সদর থানায় তার স্বামী নিখোঁজ বলে একটি সাধারণ ডায়রি করেন।

জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করে পটুয়াখালী সদর থানার ওসি তারিকুল ইসলাম জানান, তরু পটুয়াখালী শহরের পুলিশের তালিকাভুক্ত একজন সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে খুন, ডাকাতিসহ আটটি মামলা রয়েছে।
Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: