জুয়েল রানা, সখীপুর প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের সখীপুরে পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের একজন কর্মী পরিচয়ে বাড়িতে ঢুকে স্বর্ণালঙ্কার লুট করার ঘটনায় আরজিনা আক্তার (৩০) নামের একজন নারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত রোববার বিকেলে উপজেলার কালিয়ান এলাকার প্রতারিত লোকজন ওই মহিলা আটক করে সখীপুর থানায় সোপর্দ করে। গতকাল সোমবার পাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে টাঙ্গাইল আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ। আরজিনা আক্তার উপজেলার বেরীখোলা গ্রামের রফিকুল ইসলামের স্ত্রী। গত রোববার রাতে উপজেলার রতনপুর গ্রামের প্রবাসী রফিকুল ইসলামের স্ত্রী লাভলী আক্তার বাদী হয়ে ওই নারীকে আসামি করে মামলা করেন। পুলিশ আরজিনার কাছ থেকে এক ভরি ওজনের স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করেছে। আরজিনার কাছে প্রতারণার শিকার হওয়া আরও তিনজন সখীপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। 

থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আসামি আরজিনা আক্তার নিজেকে পরিবার পরিকল্পনার স্বাস্থ্যকর্মী পরিচয় দিয়ে উপজেলার রতনপুর গ্রামের লাভলী আক্তারের বাড়িতে যান। ওই বাড়িতে গরিব ও দুস্থদের প্রশিক্ষণের জন্য একটি ক্যাম্প করার ঘোষণা দেন। ভাড়া বাবদ ওই বাড়ির মালিক মাসে তিন হাজার টাকা পাবেন। ওই পাড়ার ২০জন নারী প্রশিক্ষণ ভাতা হিসেবে প্রত্যেকে প্রতিমাসে দুই হাজার টাকা করে পাবেন। এ জন্য লাভলী আক্তার ও তার বৃদ্ধ শ্বাশুড়িকে সখীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ে গিয়ে একটি ফরম পূরণ করে আসতে হবে। ওই দুই মহিলা কাপড়-চোপর পরে সখীপুরে রওনা হওয়ার আগে প্রতারক আরজিনা বলেন, গলায় থাকা সোনার চেইন ও কানের দুল খুলে না গেলে অফিসাররা ফরম পূরণ করবে না। কারণ ফরম পূরণকারীকে গরিব হতে হবে। কথা সত্য ভেবে আরজিনার কথায় লাভলী আক্তার গলার চেইন ও কানের দুল খুলে ঘরের একটি নিরাপদ স্থানে রেখে যান। বাড়িতে বুড়ো শ্বশুরকে রেখে লাভলী তার শ্বাশুড়িসহ আরজিনাকে নিয়ে সখীপুর পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের দিকে রওনা হন। বাড়ি থেকে ১০০ গজ গিয়ে আরজিনা আক্তার একটি ফোন করেন। লাভলীকে উদ্দেশ্য করে আরজিনা বলেন, ফোনে সব আলাপ করা আছে আপনারা অফিসে গিয়ে ফরম পূরণ করতে থাকেন আমি আরও কয়েকজন মহিলাকে নিয়ে অফিসে আসছি। এ কথা বলেই আরজিনা আবার লাভলীদের বাড়িতে গিয়ে তার শ্বশুরকে টিউবওয়েল থেকে এক গ্লাস পানি আনতে বলেন। এ সুযোগে আরজিনা ঘরে ঢুকে আগে দেখা সেই নিরাপদ স্থান থেকে স্বর্ণের চেইন ও একজোড়া কানের দুল নিয়ে পানি পান করে সটকে পড়েন।
সূত্র আরও জানায়, গত রোববার দুপুরে প্রতারক আরজিনা উপজেলার বেতুয়া গ্রামের ওপর দিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশা যোগে টাঙ্গাইল যাওয়ার পথে কালিয়ান এলাকায় পৌঁছলে ওই সময় বেতুয়া গ্রামের প্রতারিত হওয়া এক ব্যক্তি তাকে চিনে ফেলেন। পরে ওই ব্যক্তি স্থানীয়দের সহযোগিতায় ওই মহিলাকে আটক করে পুলিশে দেয়।
সখীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাহেদুল ইসলাম জানান, আরজিনা একজন প্রতারক। সে গত এক মাসে একইভাবে উপজেলার তিনটি গ্রাম থেকে ছয়-সাত ভরি স্বর্ণালঙ্কার প্রতারণা করে নিয়ে গেছে। ওই নারীকে পঁাঁচদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।
Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: