জুয়েল রানা সখীপুর প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের সখীপুরে এক স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধে ওই বিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ পাওয়া উঠেছে। এ ঘটনায় গত মঙ্গলবার বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির এক জরুরি সভায় ওই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মিজানুর রহমান সবুজকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। মিজানুর রহমান উপজেলার লাঙ্গুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। অন্যদিকে বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য ও ইউপি সদস্য জয়েন উদ্দিনকে প্রধান করে অভিযোগ তদন্তে ৩ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ১৭ এপ্রিল শিক্ষক মিজানুর রহমান ওই বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণিতে পড়–য়া এক ছাত্রীকে তার শরীরের স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেওয়ার অভিযোগ করেন। পরে ওই ছাত্রী বিষয়টি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও অভিভাবকে কাছে জানান। বিষয়টি নিয়ে ঘড়িমসি শুরু হলে এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়। পরে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের তোপের মুখে গত ২৩ এপ্রিল বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির এক জরুরি সভায় ওই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কিন্তু পরের দিন গত ২৪ এপ্রিল ওই শিক্ষক বিদ্যালয়ে প্রবেশ করলে শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং ওই শিক্ষককে বিদ্যালয় থেকে বের করে দেয়। পরে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে জরুরির সভার সিদ্ধান্ত রেজুলেশনে লিপিত হয়।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম বলেন, প্রাথমিকভাবে সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে এ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
অভিযুক্ত শিক্ষক মিজানুর রহমান জানান, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার। আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি গত ১৭ এপ্রিল শ্রেণিকক্ষে পাঠদান না শেখা কয়েকজন শিক্ষার্থীকে হালকা বেত্রাঘাত করেছিলাম।
বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ফজলুল হক শিকদার বলেন, এ ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মফিজুল ইসলাম জানান বিষয়টি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমাকে জানালে আমি বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভা আহ্বান করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছি।

Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: