স্পোর্টস ডেস্ক :
 
বিপিএলে ‘আলট্রা এজ’ প্রযুক্তি চালু হচ্ছে শনিবার
প্রতিকি ছবি। 

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসরে প্রযুক্তির ছোঁয়া থাকবে-এমন ঢাকডোল আগে থেকেই পিটিয়েছিলেন বিপিএলের কর্তা ব্যক্তিরা। কিন্তু খেলা শুরু হওয়ার পর ফুটে ওঠে প্রকৃত চিত্র। ডিসিশন রিভিউ সিস্টেমের (ডিআরএস) কথা বলা হলেও এটার জন্য ছিল না প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি। তবে ডিআরএসের মাধ্যমে বিভিন্ন আউট নিয়ে সমালোচনা শুরু হলে বিপিএল কর্তৃপক্ষ অবশেষে এ প্রযুক্তির ব্যবস্থা করতে যাচ্ছে।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান ও বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য জালাল ইউনুস এ তথ্য নিশিচত করেছেন। তিনি বলেন, ‘বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের প্রযুক্তিগত সম্যস্যার সমাধান হয়েছে। শনিবার থেকে এ প্রযুক্তি প্রয়োগ হবে।’

এর আগে স্মিথ-ওয়ার্নারের আউট নিয়ে সমালোচনা হয়। স্মিথের আউটের প্রশ্নে কুমিল্লার কোচ সালাহ উদ্দিন জানিয়েছিলেন, বিপিএলে এ প্রযুক্তি থাকবে না-এমন কথা আগে থেকেই হয়েছিল। এ প্রযুক্তির ব্যয় বেশি, তাই ব্যবহার করা হচ্ছে না।

আলট্রা এজ কী?

ডিআরএসে সাধারণত ব্যবহৃত হয় তিনটি পদ্ধতি। হক-আই, হটস্পট ও স্নিকোমিটার। আর এই স্নিকোমিটারের জায়গাতেই নতুন প্রযুক্তি হিসেবে ব্যবহৃত হতে যাচ্ছে আল্ট্রা এজ। আল্ট্রা এজ হক-আইয়ের স্নিকো ভার্সন।

স্নিকো-মিটারের কাজ হচ্ছে শব্দ শনাক্ত করা। উন্নত প্রযুক্তিসম্পন্ন মাইক্রোফোনের মাধ্যমে শনাক্ত হয় এ শব্দ। বল প্যাডে লাগল নাকি ব্যাটে, তা নির্ধারণ করা হয় আওয়াজের মাধ্যমে। এটি আবিষ্কার করেন ইংলিশ কম্পিউটার বিজ্ঞানী অ্যালান প্লাসকেট।

ব্যাটে বল লেগেছে কি না, তা বোঝার জন্য স্নিকোমিটার প্রযুক্তির সাহায্য নেওয়া হতো। কিন্তু সেই প্রযুক্তি এতটাই ত্রুটিপূর্ণ বা অসম্পূর্ণ ছিল যে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে বারবার টেলিভিশন রিপ্লে দেখা সত্ত্বেও তৃতীয় আম্পায়ার সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছতে পারতেন না।

তবে প্রযু্ক্তিগত ভুল থাকায় এই ‘স্নিকোমিটার’-এর পরিবর্তে ‘আলট্রা এজ’ ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয় ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)।
Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: