মো.নূর আলম গোপালপুর প্রতিনিধি: আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনির আগামীকালের জনসভাকে কেন্দ্র করে গোপালপুর উপজেলায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। দলীয় নেতাকর্মীরা এমপি পুত্র এবং মনোনয়ন প্রত্যাশী খন্দকার মশিউজ্জামান রুবেলের বিরুদ্ধে  শুক্রবার সন্ধ্যা রাতে পৌর শহরে জুতা মিছিল বের করে। জানা যায়, গোপালপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের নামে গত ১৩ অক্টোবর উপজেলার হেমনগর কলেজ মাঠে এক নির্বাচনী জনসভা আহবান করা হয়। এতে প্রধান অতিথি করা হয় আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সাবেক পররাষ্ট মন্ত্রী ডাঃ দিপু মনিকে। কিন্তু আওয়ামীলীগের সাংসদ খন্দকার আসাদুজ্জামান নিজ পুত্র খন্দকার মশিউজ্জামান রোমেলকে ওই জনসভায় দলীয় প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা দেবে মর্মে প্রচার থাকায় দলে কোন্দল দেখা দেয়। পরবর্তীতে গত ১৬ অক্টোবর এবং ১৯ অক্টোবর জনসভার তারিখ দেয়া হলেও জেলা আওয়ামীলীগ কোন্দল ফয়সালা করতে অপারগ হওয়ায় তৃতীয় দফা উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্মতি ছাড়াই স্থানীয় সাংসদ খন্দকার আসাদুজ্জামানের একক সিদ্ধান্তে আগামীকাল শনিবার জনসভার দিন ঘোষণা দেয়া হয়। এতে আওয়ামীলীগের অপর চার  মনোনয় প্রত্যাশীর মধ্যে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনুস ইসলাম তালুকদার জানান, জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগকে অন্ধকারে রেখে স্থানীয় সাংসদ খন্দকার আসাদুজ্জামান নিজ পুত্র মশিউজ্জামান রুমেলকে দলীয় প্রার্থী হিসাবে ঘোষনা দেয়ার জন্য কৌশলে এ জনসভার আয়োজন করেছে। জনগন এ এ ষড়যন্ত্রকে মেনে নেবেনা। তাই আগামীকালের এ জনসভাকে দলীয় নেতাকর্মীরা প্রত্যাখান করেছে। অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং জেলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক  তানভীর হাসান ছোট মনি জানান, স্থানীয় সাংসদ খন্দকার আসাদুজ্জামান  জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগকে পাশ কাটিয়ে নিজের অযোগ্য পুত্রকে দলের প্রার্থী হিসাবে কৌশলে ঘোষণা দেয়ার জন্য একজন কেন্দ্রীয় নেত্রীকে মিশগাইড করে আগামীকালের জনসভার আয়োজন করেছে। জনগন এ ষড়যন্ত্রমূলক জনসভাকে প্রত্যাখান করেছে। অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আশরাফুজ্জামান স্মৃতি জানান, দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে এ জনসভা। এ জনসভায় কোন নেতাকর্মী অংশ নেবেনা। জনসভার নামে নিজ পুত্রকে ঘোষনা দেয়ার এ চক্রান্তে কেউ অংশ নেবেনা।  উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হালিমুজ্জামান তালুকদার জানান, স্থানীয় সাংসদ এ জনসভা চাপিয়ে দিয়েছে। তাই দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ ও চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। সন্ধ্যায় স্থানীয় সাংসদ এবং তার পুত্রের বিরুদ্ধে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা জুতো মিছিল করে প্রতিবাদ জানায়। ওসি হাসান আল মামুন জানান, জনসভাকে কেন্দ্র করে উত্তজেনার প্রেক্ষিতে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা নয়ো হয়েছে।

Share To:

Tangail Darpan

Post A Comment: